Page Nav

HIDE

Grid Style

GRID_STYLE

Post/Page

Weather Location

Breaking News:

latest

"দেশে মনমোহন সিংয়ের দরকার", সামনায় শিবসেনা নেতা সঞ্জয় রাউতের মন্তব্য

করোনার সংক্রমণের কারণে অর্থনীতি বড় আঘাত পেয়েছিল। তারপর অর্থনীতি পুনরায় ধীরে ধীরে ট্র্যাকে ফিরতে শুরু করেছিল, এমন পরিস্থিতিতে করোনার দ্বিতীয় তরঙ্গ এলো এবং দেশের অর্থনীতির সামনে আবারও একটি বড় সংকট দেখা দিয়েছে। বর্তমানে, এর প্রভা…



করোনার সংক্রমণের কারণে অর্থনীতি বড় আঘাত পেয়েছিল। তারপর অর্থনীতি পুনরায় ধীরে ধীরে ট্র্যাকে ফিরতে শুরু করেছিল, এমন পরিস্থিতিতে করোনার দ্বিতীয় তরঙ্গ এলো এবং দেশের অর্থনীতির সামনে আবারও একটি বড় সংকট দেখা দিয়েছে। বর্তমানে, এর প্রভাবটি শেয়ার বাজারে প্রতিদিন দেখা যায়। এখন, দেশের আজকের পরিস্থিতি সম্পর্কে মন্তব্য করে শিবসেনার মুখপাত্র ও সাংসদ সঞ্জয় রাউত শিবসেনার মুখপত্র সামনাতে অনেক কিছু লিখেছেন। সামনায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ফ্রাঙ্কলিন ডেলাানো রুজভেল্টের নেওয়া সিদ্ধান্তের কথা স্মরণ করিয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদীকে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে দেশটির একটি মনমোহন সিং এবং রুজভেল্ট দরকার।


এর সাথে তার 'রোকঠোক' নিবন্ধে সঞ্জয় রাউত প্রধানমন্ত্রী মোদী এবং অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামনের কাজ নিয়ে মন্তব্য করে লিখেছেন, 'শেয়ারবাজারে ধস এখন আর নতুন জিনিস নয়। মুকেশ আম্বানির বাড়ির বাইরে বিস্ফোরক ভর্তি গাড়ি পাওয়া গেছে, শেয়ারবাজার পড়ার জন্য এটিই যথেষ্ট। আমাদের অর্থনীতি এই ধরনের দুর্বল পায়ে দাঁড়িয়ে আছে। আগে যুদ্ধ বা মহাযুদ্ধের সময় অর্থনীতি পড়ে যেত, এখন করোনার সংকটের কারণে শেয়ার বাজার প্রতিদিন কমতে শুরু করেছে। আমাদের দেশে নয়, সারা বিশ্বজুড়ে মন্দার এক ভয়াবহ তরঙ্গ রয়েছে।" সেখানে আরও লেখা হয়েছে,“ভারতের মতো দেশে উৎপাদনের গতি কমেছে। নোটবন্দীর সময় লোকেরা চাকরি হারিয়েছিল। লকডাউনে বেঁচে যাওয়া ব্যক্তিরাও চাকরি হারিয়েছেন। বাজারে কোনও চলাচল নেই। মানুষের অর্থ ব্যয় করার ক্ষমতা নেই। দেশের অর্থমন্ত্রী হলেন নির্মলা সিথারমন। এ জাতীয় সঙ্কটের সময়ে এক নতুন মনমোহন সিংকে প্রস্তুত করার এবং দেশের অর্থনীতি তার হাতে দেওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। এতে আরও লেখা আছে, 'আজ দেশের ৬০ শতাংশ মানুষ বেকার হয়ে পড়েছে। এনএনপি নেমে গেছে। তবে যারা দেশ পরিচালনা করেন তারা উদাসীন এবং আত্মতুষ্ট নন। প্রধানমন্ত্রী মোদী একজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। গত কয়েকমাসে অর্থনীতির অনেক ভালো জ্ঞানীবিদ তাকে ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন। গুজরাট একটি ব্যবসায়ীদের অঞ্চল। তারা এ কথা বারবার গর্বের সাথে বলে। মোদীও বারবার এর পুনরাবৃত্তি করেছেন। তবে ব্যবসায়ীরা দোকানে শান্তভাবে বসে আছে।'

No comments