Page Nav

HIDE

Grid Style

GRID_STYLE

Post/Page

Weather Location

Breaking News:

latest

আদা-জল খেয়ে লেগে পড়ার উপকারিতাগুলি জানেন তো

একটা প্রবাদ তো আমাদের বাঙালিদের মুখে মুখে ফেরে – ‘আদা-জল খেয়ে লেগে পড়া’। কিন্তু কখনও কি কেউ ভেবে দেখেছেন যে, আদা ফুটিয়ে নেওয়া জলের সত্যিই এমন কোনও বিশেষ গুণ আছে কি, যা তাকে অনন্য সাধারণ করে তোলে? উত্তর হল, হ্যাঁ, অবশ্যই আছে। বহু…




একটা প্রবাদ তো আমাদের বাঙালিদের মুখে মুখে ফেরে – ‘আদা-জল খেয়ে লেগে পড়া’। কিন্তু কখনও কি কেউ ভেবে দেখেছেন যে, আদা ফুটিয়ে নেওয়া জলের সত্যিই এমন কোনও বিশেষ গুণ আছে কি, যা তাকে অনন্য সাধারণ করে তোলে? উত্তর হল, হ্যাঁ, অবশ্যই আছে। বহু যুগ ধরে বদহজম ঠেকাতে, খাবারকে সহজপাচ্য করে তোলার কাজে বা ঠান্ডা লাগার মোক্ষম দাওয়াই হিসেবে আদার ব্যবহার হচ্ছে। ভারতীয় উপমহাদেশ বা চিনদেশের প্রাচীন সভ্যতায় আদার নানা অনুপানের ভুরি ভুরি উদাহরণ ছড়িয়ে আছে। তাজা আদার পাশাপাশি গুঁড়ো বা শুকনো আদার ব্যবহারও হয়। মর্নিং সিকনেস বা সি সিকনেসের মতো সমস্যা থেকে বাঁচতে চাইলে আদা আপনার সহায় হতে পারে। যে কোনও ধরনের বমিভাব ঠেকাতে এক টুকরো নুন-লেবুমাখা আদার টুকরো মুখে পুরে রাখুন।


অনেক সময় অতিরিক্ত ব্যায়াম বা পরিশ্রমের ফলে মাসলে ব্যথা হয়। সেক্ষেত্রে জলে আদা ফুটিয়ে ছেঁকে খান। টানা বেশ কয়েকদিন খাওয়ার পর ব্যথা নিশ্চিতভাবেই আগের চেয়ে কমে যাবে। প্রদাহজনিত কোনও ব্যথা থাকলে সেটাও সারাতে পারে আদার জল। যাঁরা দীর্ঘদিন ধরে বদহজমে ভুগছেন, তাঁরা ডায়েটে পরিবর্তন আনার পাশাপাশি নিয়মিত আদার জল খান একটু লেবু মিশিয়ে। হজমশক্তি উন্নত হতে বাধ্য। গলা ব্যথা, খুশখুশে কাশি বা ঠান্ডা লাগার সমস্যা থাকলে তো অবশ্যই আদা-মধু-লেবুর জল খান। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে চা না খেয়ে যদি আদা জলে ফুটিয়ে নিয়ে মধু মিশিয়ে খান। ফারাকটা কিছুদিনের মধ্যেই আপনার কাছে স্পষ্ট হয়ে যাবে।

No comments