Page Nav

HIDE

Grid Style

GRID_STYLE

Post/Page

Weather Location

Breaking News:

latest

কংগ্রেসে বড় পরিবর্তন, সিডব্লিউসি পুনর্গঠন করলেন সোনিয়া গান্ধী

সংগঠনটি নিয়ে একটি বড় ঘোষণা করে দলের সভাপতি সোনিয়া গান্ধী কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটি (সিডব্লিউসি) পুনর্গঠন করেছেন। এছাড়াও কংগ্রেস সভাপতির সমর্থনে ছয় নেতার একটি কমিটিও গঠন করা হয়েছে। এর সাথে অনেক রাজ্যের ইনচার্জকে পরিবর্তন করা হ…



সংগঠনটি নিয়ে একটি বড় ঘোষণা করে দলের সভাপতি সোনিয়া গান্ধী কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটি (সিডব্লিউসি) পুনর্গঠন করেছেন। এছাড়াও কংগ্রেস সভাপতির সমর্থনে ছয় নেতার একটি কমিটিও গঠন করা হয়েছে। এর সাথে অনেক রাজ্যের ইনচার্জকে পরিবর্তন করা হয়েছে এবং কংগ্রেসে সংগঠন নির্বাচন পরিচালনা করা কেন্দ্রীয় নির্বাচন কর্তৃপক্ষও পুনর্গঠিত করা হয়েছে।


কংগ্রেস নেতাদের ২৩ দলীয় সভাপতির সোনিয়া গান্ধীকে সাম্প্রতিক চিঠি এবং পরবর্তী সিডব্লিউসি বৈঠকের ২০ দিনের মধ্যে এই রদবদল হয়েছে। যে নেতারা চিঠিটি লিখেছিলেন তারা সিডাব্লুসি নির্বাচন করার দাবি করেছিলেন তবে সোনিয়া গান্ধী সিডব্লিউসি পুনর্গঠন করেছেন। সোনিয়া গান্ধী, রাহুল গান্ধী, প্রিয়াঙ্কা গান্ধী, মনমোহন সিং, আহমেদ প্যাটেল, গোলাম নবী আজাদ, আনন্দ শর্মা, এ কে অ্যান্টনি, অম্বিকা সোনি সহ মোট ২২ জন নেতাকে সিডব্লিউসি-র সদস্য করা হয়েছে।


রণদীপ সুরজেওয়ালা রদবদলের সবচেয়ে বড় প্রচার পেয়েছেন। রণদীপ, তারিক আনোয়ার এবং জিতেন্দ্র সিংকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে এবং সিডব্লিউসি তে জায়গা পেয়েছেন। সোনিয়া গান্ধীকে সহায়তা করার জন্য গঠিত কমিটিতে রণদীপ সুরজেওয়ালার নামও রয়েছে।


গোলাম নবী আজাদ, মুকুল ওয়াসনিকের মতো চিঠি লেখা নেতারাও সমান জায়গা পেয়েছেন। গোলাম নবী আজাদকে সিডাব্লুসি’র সদস্য করা হলেও সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। অম্বিকা সোনি ও মল্লিকার্জুন খড়গেকেও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব থেকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। যদিও দুজনকেই সিডব্লিউসি-র সদস্য করা হয়েছে। আনন্দ শর্মা কে সিডাব্লুসি-র সদস্যও করা হয়েছে। মুকুল ওয়াসনিককে সাধারণ সম্পাদক পদে ধরে রাখা হয়েছে এবং সোনিয়া গান্ধীকে সমর্থনকারী কমিটিতেও তাকে স্থান দেওয়া হয়েছে।


ভূপেন্দ্র সিং হুদা, কপিল সিব্বল, শশী থারুর, মনীষ তিওয়ারির মতো যে নেতারা চিঠি লিখেছিলেন তাদের মধ্যে কারোওর তালিকায় উল্লেখ নেই। শচীন পাইলটকেও এড়িয়ে গেছেন। তবে, মণীশ তিওয়ারি এবং শচিন পাইলটের মতো নেতারা আগামী দিনে অন্যান্য বড় দায়িত্ব পেতে পারেন।


প্রত্যাবর্তনকারীদের মধ্যে রয়েছেন দিগ্বিজয় সিং, যাকে সিডাব্লুসি’র স্থায়ী আমন্ত্রিত সদস্য করা হয়েছে। সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ হল জিতিন প্রসাদের নাম যিনি বাংলার দায়িত্বে নিযুক্ত হয়েছেন এবং এর কারণে সিডব্লিউসি-র বিশেষ আমন্ত্রিত সদস্যকে স্থায়ী সদস্য হিসাবে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে। চিঠিটি লিখেছেন এমন ২৩ নেতার মধ্যে জিতিন প্রসাদও ছিলেন। সালমান খুরশিদ, জয়রাম রমেশ, রাজীব শুক্লা, পবন বানসালের মতো নেতাদেরও স্থায়ী আমন্ত্রিত করা হয়েছে।


সাধারণ সম্পাদকদের মধ্যে রণদীপ সুরজেওয়ালাকে কর্ণাটকের ইনচার্জ, তারিক আনোয়ারকে কেরালা, জিতেন্দ্র সিংকে আসাম এবং পাঞ্জাবের হরিশ রাওয়াতকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। অজয় মাকন এরই মধ্যে রাজস্থান এবং মুকুল ওয়াসনিক মধ্যপ্রদেশের দায়িত্ব পেয়েছেন। উত্তর প্রদেশের দায়িত্বে থাকবেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী।


প্রবীণ নেতা মতিলাল বোহড়া চলে গেছেন। তিনি সিডব্লিউসি তে জায়গা পাননি এবং সাধারণ সম্পাদক প্রশাসনের দায়িত্ব থেকেও মুক্তি পেয়েছেন। পবন কুমার বনসাল প্রশাসনের দায়িত্ব পেয়েছেন।


পদোন্নতি পাওয়া নেতাদের মধ্যের পশ্চিমবঙ্গে জিতিন প্রসাদ, হিমাচল প্রদেশে রাজীব শুক্লা, তেলঙ্গানায় মানিকম ঠাকুর, মহারাষ্ট্রে এইচকে পাটিল, হরিয়ানাতে বিবেক বানসাল, উত্তরাখণ্ডে দেবেন্দ্র যাদব এবং মণীশ চত্রথকে অরুণাচল প্রদেশ ও মেঘালয়ের প্রভারী করা হয়েছে। রজনী পাটিলকে জম্মু-কাশ্মীরের নতুন প্রভারী করা হয়েছে।


কংগ্রেস সভাপতি সোনিয়া গান্ধীকে সহায়তা করার জন্য একটি বিশেষ কমিটি গঠন করা হয়েছে। একে অ্যান্টনি, আহমেদ প্যাটেল, অম্বিকা সোনি, ভেনুগোপাল, মুকুল ওয়াসনিক এবং রণদীপ সুরজেওয়ালা এর সদস্য।


কংগ্রেসের কেন্দ্রীয় নির্বাচন কর্তৃপক্ষের সভাপতি মধুসূদন মিস্ত্রি হয়েছেন। এটির মাধ্যমেই কংগ্রেসে পরবর্তী সভাপতি নির্বাচনের প্রক্রিয়া শুরু হতে পারে। অরবিন্দর সিং লাভলিসহ আরও চার নেতাকে এর সদস্য করা হয়েছে। লক্ষণীয় বিষয় হল যে এই চিঠিটি লেখা নেতাদের মধ্যে লাভলিও ছিলেন।


সামগ্রিকভাবে, রাহুল গান্ধীর বিশ্বস্ত নেতারা তার পুরানো বিশ্বাসীদের পাশাপাশি সোনিয়া গান্ধীর নতুন দলে প্রচুর জায়গা পেয়েছেন। যাদের ধৈর্য রয়েছে তারা পুরষ্কার পেয়েছে। যে দলটি চিঠিটি লিখেছিল তাদের উপেক্ষা করা হয়নি, তবে কিছু নাম দিয়ে 'শৃঙ্খলা'র বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে।


তবে, এখনও বড় প্রশ্ন রয়ে গেছে যে সোনিয়া গান্ধীর জায়গায় কংগ্রেসের পরবর্তী সভাপতি কে হবেন .. রাহুল গান্ধী নাকি তিনি গান্ধী পরিবারের বাইরের কোনো নেতা হবেন?

No comments