Page Nav

HIDE

Grid Style

GRID_STYLE

Post/Page

Weather Location

Breaking News:

latest

গর্ভাবস্থার পর বেড়ে যাওয়া ওজন দ্রুত হ্রাস করতে অনুসরণ করুন এই উপায়

প্রসবের পরে মহিলাদের ওজন কমাতে সাধারণত সমস্যা হয়। ওজন কমাতে তাদের বিভিন্ন ধরণের প্রচেষ্টা করতে হয়। এটি খাবারের আকারে বাচ্চাদের যে দুধ পান করে এতে তার প্রভাব পড়ে।

প্রসবের পরে ওজন হ্রাস করার টিপস
আমেরিকান অ্যাসোসিয়েশন অফ গাইনোকোলজ…





প্রসবের পরে মহিলাদের ওজন কমাতে সাধারণত সমস্যা হয়। ওজন কমাতে তাদের বিভিন্ন ধরণের প্রচেষ্টা করতে হয়। এটি খাবারের আকারে বাচ্চাদের যে দুধ পান করে এতে তার প্রভাব পড়ে।



প্রসবের পরে ওজন হ্রাস করার টিপস


আমেরিকান অ্যাসোসিয়েশন অফ গাইনোকোলজি অনুসারে, গর্ভাবস্থায় ১১-১৬ কেজি ওজন বাড়ানো স্বাস্থ্যকর হওয়ার লক্ষণ। এই ঘটনাটি অতিক্রম করা বা ঘটানো স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকারক হতে পারে। গর্ভাবস্থায় ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে সুষম ডায়েট, পর্যাপ্ত ঘুম এবং সকালের পদচারণা করা দরকার। ডায়েটে ফলমূল, শাকসবজি এবং ডালের ব্যবহার অনুকূল বলে বিবেচিত হয়। ভাজা বা জাঙ্ক ফুডের পরিবর্তে ফল এবং শুকনো ফল দিয়ে আপনার অপ্রয়োজনীয় ক্ষুধা কাটাতে হবে।



আমেরিকান অ্যাসোসিয়েশন অফ নিউট্রিশন অ্যান্ড ডায়েটসের মতে, কোনও মহিলার দেহে প্রসবের পরে পুরানো উপস্থিতিতে ফিরে আসতে আরও শক্তির প্রয়োজন হয়। ৯ মাসের মধ্যে দেহ প্রসবের সময় অনেকগুলি পরিবর্তন এবং পেশী বিচ্ছেদ ঘটায়। এ জাতীয় পরিস্থিতিতে প্রাকৃতিক উপায়ে পরিবর্তনগুলি অপসারণ করা দরকার। এ ছাড়া প্রতিদিন নিরীহদের জন্য দুধের প্রয়োজন হয়।



এক মাসে ওজন ৩-৪-৮ কেজি পর্যন্ত হতে পারে



শরীর বুকের দুধ তৈরি করতে ৫০০ ক্যালরি ব্যয় করে। একজন মায়ের দৈনিক ২৫০০ ক্যালোরি প্রয়োজন। প্রতিদিনের ডোজ ভাল এবং ভারসাম্য রেখে এই শক্তি অর্জন করা যেতে পারে। অতএব, আপনার ডায়েট যত ভাল এবং ভারসাম্যহীন হবে তত দ্রুত আপনার শরীর পুরানো রূপে ফিরে আসবে। কিছু নির্দেশনা অনুসরণ করে, প্রতি মাসে সহজ ও স্বাস্থ্যকর উপায়ে ৪-৪ কেজি ওজন হ্রাস করা যায়। এটি সন্তানের ডোজকে প্রভাবিত করবে না।



১.সকালে ঘুম থেকে উঠে এক গ্লাস জলে মধু মিশিয়ে নিন।

২. দ্রুত এবং স্বাস্থ্যকর প্রাতঃরাশ করুন।

৩.একটি ডিম, ২ টি মৌসুমী,পালংশাক এবং ৩ প্রকার সবজি প্রতিদিন খান।

৪. প্রতিদিন কমপক্ষে ১২ গ্লাস জলের অভ্যাস গ্রহণ করুন।

৫. বিরতিতে খেজুর, ভাজা ছোলা খান।

৬. খাবার সব সময় খাওয়া উচিৎ।

৭. এতে মুরগি, মাছ বা ডাল ব্যবহার করা যেতে পারে।

No comments