Page Nav

HIDE

Grid Style

GRID_STYLE

Post/Page

Weather Location

Breaking News:

latest

পৃথিবীর সর্ববৃহৎ এই আয়না সম্পর্কে জানেন?

স্টার ওয়ার্স এর সিক্যুয়েল ‘দ্য লাস্ট জেডাই’ সিনেমাটি দেখেছিলেন? সিনেমাটিতে দেখানো এলিয়েন গ্রহের জায়গাটি কি নিতান্তই কম্পিউটার বানানো? নাকি পৃথিবীতে এমন কোন জায়গা রয়েছে? সিনেমাটির এসব দৃশ্যের শুটিং করা হয়েছিল ‘সালার দে…


     স্টার ওয়ার্স এর সিক্যুয়েল ‘দ্য লাস্ট জেডাই’ সিনেমাটি দেখেছিলেন? সিনেমাটিতে দেখানো এলিয়েন গ্রহের জায়গাটি কি নিতান্তই কম্পিউটার বানানো? নাকি পৃথিবীতে এমন কোন জায়গা রয়েছে? সিনেমাটির এসব দৃশ্যের শুটিং করা হয়েছিল ‘সালার দে উয়ুনি’ নামক স্থানে। যা বলিভিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে সাড়ে ১০ হাজার বর্গ কিলোমিটার জায়গা জুড়ে বিস্তৃত। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে জায়গাটির উচ্চতা প্রায় সাড়ে ৩ কিলোমিটার। জায়গাটি ভীষন সমতল এবং বিভিন্ন বৈজ্ঞানিক পরীক্ষায় জায়গাটিকে আদর্শ সমতল হিসেবে ধরা হয়।

     বৃষ্টির সময় জল দিগন্ত জুড়ে সমানভাবে ছড়িয়ে পড়ে তৈরি হয় পৃথিবীর সবচেয়ে বড় আয়না। দেখলে মনে হয় যেন আকাশকে প্রতিফলিত করছে। জায়গাটি মূলত একটি বিবর্তিত লোনা জলের লেক। ওপরে জমেছে কয়েক মিটার পুরু লবণের মজবুত স্তর। নিচেই রয়েছে ঘনীভূত লবণের জল যা ব্রাইন নামে পরিচিত।

























    লবণ ছাড়াও ‘সালার দে উয়ুনি’ অনেক খনিজ সম্পদের ভাণ্ডার। পৃথিবীর অর্ধেকের বেশি লিথিয়াম এখানেই জলীয় অবস্থায় বিদ্যমান। বলিভিয়ার অর্থনীতিতে জায়গাটির রয়েছে উল্লেখযোগ্য অবদান। ‘সালার দে উয়ুনি’ রাতের বেলায় আরো বেশি মনমুগ্ধকর। পুরো আকাশ যেন নেমে আসে পৃথিবীর বুকে।

        বর্ষা মৌসুমে পর্যটক এর পাশাপাশি ফ্লেমিঙ্গো দের আগমন ঘটে। এখানে লবণাক্ত জলে জন্মানো শ্যাওলা আর ব্রাইন চিংড়ি এদের প্রিয় খাবার। এদের দেহের রং মূলত সাদা হলেও শ্যাওলা আর চিংড়ির রঞ্জকের প্রভাবে পালক গুলো রক্তিম বর্ণ ধারণ করে। পর্যাপ্ত খাবার থাকায় এরা এখানে বংশ বৃদ্ধি ঘটায়। এবং নাচের মাধ্যমে তারা সঙ্গী নির্বাচন করে। সবকিছু মিলিয়ে ‘সালার দে উয়ুনি’ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এমন এক লীলাভূমি যা পৃথিবীতে অদ্বিতীয়।

  শিপ্রা হালদার

No comments