Page Nav

HIDE

Grid Style

GRID_STYLE

Post/Page

Weather Location

Breaking News:

latest

অনিন্দ্য সুন্দর পৃথিবীর মনমুগ্ধকর কিছু জায়গা!

হিলিয়ার লেক

লেকটি সম্পূর্ণরূপে গোলাপি রঙের। পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার সাউথ কোস্টে অবস্থিত হ্রদটির গোলাপি রং স্থিতিশীল। কোন পাত্রে এই জল অন্যত্র নিলেও রঙ পরিবর্তিত হয় না। Dunaliella salina নামক অণুজীবের কারণে এখানকার জল গোলাপি রং ধারণ…


       
হিলিয়ার লেক

লেকটি সম্পূর্ণরূপে গোলাপি রঙের। পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার সাউথ কোস্টে অবস্থিত হ্রদটির গোলাপি রং স্থিতিশীল। কোন পাত্রে এই জল অন্যত্র নিলেও রঙ পরিবর্তিত হয় না। Dunaliella salina নামক অণুজীবের কারণে এখানকার জল গোলাপি রং ধারণ করেছে। হ্রদটির সৌন্দর্য পূর্ণরূপে দেখতে আপনাকে আকাশচারী হতে হবে। লবণের মাত্রা বেশি থাকা সত্ত্বেও এখানে সাঁতার কাটা সম্পূর্ণ নিরাপদ।

   
কানো ক্রিস্টালস নদী

  নদীটির অবস্থান কলম্বিয়ার মেটা প্রদেশে। নদীটিকে ডাকা হয় লিকুইড রেইনবো বা তরল রংধনু হিসেবে। জুলাই থেকে নভেম্বর পর্যন্ত নদীটির তলদেশ মনমুগ্ধকর রং প্রদর্শন করে। হলুদ, সবুজ, নীল, কালো এবং লাল রঙের এক অপূর্ব শিল্প নদীর বুকে শোভা পায়। লাল রঙের জন্য দায়ী একপ্রকার জলজ উদ্ভিদ।

   
দ্যুতিময় সমুদ্র সৈকত

 আমাদের সুন্দর পৃথিবীতে অনেকগুলো প্রদীপ্ত সমুদ্র সৈকত রয়েছে। মালদ্বীপ, সান ডিয়েগো এবং পুয়ের্তো রিকোয় এগুলোর অবস্থান।  অ্যাভাটার সিনেমার কাল্পনিক জগতের মতোই পদচারণায় সৈকত জ্বলে ওঠে। অস্ট্রাকড এবং প্ল্যাংকটন এই স্বর্গীয় আলোক আভার জন্য দায়ী। কোন কিছু এই জীবদের স্পর্শ করলেই এদের কোষ থেকে উজ্জ্বল নীল আলোকচ্ছটার সৃষ্টি হয়।

       
সুকাত্রা দ্বীপ

 আরব সাগরে অবস্থিত ইয়েমেনের একটি দ্বীপপুঞ্জ। এটি পৃথিবীর সবচেয়ে এলিয়েন সদৃশ জায়গা হিসেবে স্বীকৃত। এখানে প্রায় ৮০০ ধরনের খুবই বিরল প্রজাতির প্রাণী ও উদ্ভিদের বসবাস। প্রায় ২০০ প্রজাতির পাখি এবং ২৪০ প্রজাতির গাছ এই দ্বীপে স্বতন্ত্র। সেগুলির মধ্যে ‘ড্রাগণ ব্লাড ট্রি’অন্যতম। এই ছাতা সদৃশ বৃক্ষটি দ্বীপটির সৌন্দর্য্য বাড়িয়েছে বহুগুণে। সমুদ্র সৈকত জুড়ে মাইলের পর মাইল রয়েছে শুভ্র বালির স্তুপ।

   
থিংভেলির লেক

 আইসল্যান্ড, জায়গাটি সিলফ্রা নামেও পরিচিত। এটি দুটি মহাদেশীয় প্লেটের সংযোগস্থলে অবস্থিত। উত্তর আমেরিকান এবং ইউরেশিয়ান প্লেট এখানে মিলিত হয়েছে। প্রতিবছর মহাদেশীয় প্লেটদুটি ২ সেন্টিমিটার দূরে সরে যায়। ফলে, জায়গাটিতে তৈরি হয়েছে আগ্নেয়গিরি এবং উষ্ণ জলের ধারা। জল এখানে এত স্বচ্ছ যে ১০০ মিটার দূরের বস্তুকেও স্পষ্ট দেখা যায়। এখানে সাঁতার কাটা যেকোনো মানুষের জন্য এক অনন্য অভিজ্ঞতা।

  শিপ্রা হালদার

No comments