Page Nav

HIDE

Grid Style

GRID_STYLE

Post/Page

Weather Location

Breaking News:

latest

পা-আ্যলিং ডুবুরি- জীবিকার জন্য জীবন বাজি

পিঙ্কি নস্কর

কিছু সাগরের তীরবর্তী অঞ্চলে, মাছের পরিমাণ আশঙ্কাজনক ভাবে কমে গেছে। ফলে, মাছ শিকারের জন্য জেলেরা, সাগরের গভীর থেকে গভীরে ডুব দিতে বাধ্য হচ্ছে। কিছু ক্ষেত্রে এতই গভীর যে, তারা মানুষের সর্বোচ্চ সামর্থের পরীক্ষা দিয়ে চ…


পিঙ্কি নস্কর

কিছু সাগরের তীরবর্তী অঞ্চলে, মাছের পরিমাণ আশঙ্কাজনক ভাবে কমে গেছে। ফলে, মাছ শিকারের জন্য জেলেরা, সাগরের গভীর থেকে গভীরে ডুব দিতে বাধ্য হচ্ছে। কিছু ক্ষেত্রে এতই গভীর যে, তারা মানুষের সর্বোচ্চ সামর্থের পরীক্ষা দিয়ে চলেছে।
           পা-আ্যলিং, ডুবুরিদের জগতে স্বাগতম। এদের মৎস্য শিকার কৌশল পৃথিবীতে সবচেয়ে বিপদজনক। ফিলিপিন্সের সেবু  ও পালাওয়ানের দ্বীপের এই জেলেরা, মাছ শিকারের জন্য ১৩০ ফুট পর্যন্ত ডুব দেন। অক্সিজেন সরবরাহের জন্য এরা নৌকায় থাকা একটি জরাজীর্ণ কম্প্রেসারের ওপর নির্ভরশীল। কম্প্রেসার এবং ডুবুরির মধ্যে সংযোগ স্থাপন করে প্লাস্টিকের লম্বা পাইপ।




















             ডুবুরিরা প্রথমে, জালের বিশাল কুণ্ডলী সাগরের তলদেশে নিয়ে যায়। এ সময় থেকেই কম্প্রেসার এবং প্লাস্টিকের পাইপে সুনিপুণ পর্যবেক্ষণের প্রয়োজন হয়। বাতাসের সঞ্চালন থেমে গেলে, এই পরিমান গভীরতায় বাঁচার কোন উপায় নেই। ডুবুরিরা সাগরের তলদেশ জুড়ে জালের এক প্রান্ত আটকে দেয়। এরপর, অপর প্রান্তে বেঁধে দেয় বায়ু ভর্তি কন্টেনার। ফলে, তৈরি হয় গুহা সদৃশ্য এক বিশাল ফাঁদ। এখন সময় মাছকে তাড়া করে ফাঁদে প্রবেশ করানোর।
              নৌকাটি ১ কিলোমিটার দীর্ঘ একটি দড়িকে ফাঁদের দিকে টেনে নিয়ে যায়। ডুবুরিরা দড়ির সাথে সাথে এগিয়ে যান। দোদুল্যমান দড়ি, আর ডুবুরিদের বাবল দেখে মাছেরা, ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে ফাঁদে প্রবেশ করে।
            দড়ির বৃত্ত ছোট হওয়ার সাথে সাথে ফাঁদে মাঝে সংখ্যাও বাড়তে থাকে। এই পদ্ধতি এতটাই কার্যকরী যে, রিফের প্রায় ৫০ শতাংশ মাছ ফাঁদে প্রবেশ করে। ডুবুরিরা ভালো করেই জানেন, এই কাজটা কতটা ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারে। কিন্তু জীবিকার জন্য, এর চেয়ে ভালো উপায় এদের জানা নেই। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মানুষের জীবনধারাকে অসাধারণ ভাবে সহজ করে তুলেছে। তবে, কিছু মানুষ জীবিকার জন্য, আজও জীবন বাজি রেখে চলেছেন, পা-আ্যলিং জেলেরা তারই বাস্তব উদাহরণ।

No comments