Top Ad 728x90

Saturday, 1 December 2018

, ,

মেলায় চলছে মহিলাদের অশ্লীল নাচের আসর



দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার জেলা আরক্ষাধিক্ষকের নির্দেশের তোয়াক্কা না করে বোল্লা মেলায় চলছে মহিলাদের অশ্লীল নাচের আসর, আসরের গেট কিপারের দায়িত্বে এবার খোদ পুলিশ এবং সিভিক ভলেন্টিয়ার্স। শুক্রবার থেকে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বোল্লা এলাকায় শুরু হয়েছে বোল্লা রক্ষাকালী মাতার পূজা। পূজা উপলক্ষ্যে বোল্লা এলাকা জুড়ে বসেছে মেলা। প্রতি বছরের ন্যায় এবছরেও বোল্লা মেলার প্রথম দিন থেকে লক্ষাধিক মানুষের ভীড় উপচে পড়েছে মেলা চত্বরে। সেই সঙ্গে শুক্রবার রাত থেকেই মন্দির চত্বর থেকে একশো মিটার দূরত্বে চলছে বিনোদনের নামে অশ্লীল অর্ধনগ্ন নাচের আসর। প্রসঙ্গত উল্লেখ যে বেশ কিছুদিন ধরে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বিভিন্ন প্রান্তে অশ্লীল নাচের আসরের সঙ্গে জুয়া খেলার আসর বসার খবর বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পর দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার জেলা আরক্ষাধিক্ষক নগেন্দ্রনাথ ত্রিপাঠী জানিয়েছিলেন এই সমস্ত কার্জকলাপ বরদাস্ত করা হবে না। মেলা শুরুর প্রথম দিনই সাংবাদিক বৈঠক করে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা আরক্ষাধিক্ষক নগেন্দ্রনাথ ত্রিপাঠী বোল্লা রক্ষাকালী মন্দির সংলগ্ন এলাকায় সি.সি.টিভির মাধ্যমে নজরদারি চালানোর কথা বলার পাশাপাশি ডি.এস.পি এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের তত্বাবধানে বোল্লা এলাকায় পুলিশ এবং সিভিক ভলেন্টিয়ার্স মিলিয়ে ৪০০ কর্মী মোতায়ন থাকার কথা জানান। শুধু তাই নয় মেলার নিরাপত্তা বজায় রাখতে বোল্লা রক্ষাকালী মাতার মন্দির লাগোয়া বোল্লা রাজকিশোর উচ্চ বিদ্যালয় চত্ব্বরে অস্থায়ীভাবে গড়ে তাবু পড়েছে জেলা আরক্ষাধিক্ষকের চেম্বারের। অথচ জেলা আরক্ষাধিক্ষকের সেই চেম্বার থেকে একশো মিটার দূরত্বের মধ্যে দেখা গেল সম্পূর্ণ ভিন্ন চিত্র। জেলার পুলিশ প্রধানের নির্দেশকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে যখন মেলা চত্বরে জমজমাট মহিলাদের দ্বারা অর্ধনগ্ন গানের জমজমাট আসরের প্রবেশ দ্বারের দায়িত্ব সামলাচ্ছেন এক উর্দিধারী পুলিশকর্মী এবং দুই জন সিভিক ভলেন্টিয়ার্স তখন নিরাপত্তা এবং শৃঙখলার দায়িত্বে থাকা তত্বাবোধায়ক পুলিশ আধিকারিক বোল্লা রাজকিশোর উচ্চ বিদ্যালয় চত্বরে ধুমপানে বিভোর। এত পুলিশ থাকতে কিভাবে প্রকাশ্যে মেলা চত্বরে চলছে অর্ধনগ্ন মহিলাদের অশ্লীল নাচের আসর সেই বিষয়ে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে আরম্ভ করেছে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বাসিন্দারা। জেলার শিল্পী মহলের একাংশের বক্তব্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেখানে বাংলার সংস্কৃতিকে বিশ্বের দরবারে প্রতিষ্ঠিত করার লড়াই লড়ে চলেছেন সেখানে দাঁড়িয়ে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার মত সাংস্কৃতিক জেলায় এই অপসংস্কৃতির আমদানিকারকদের বিষয়ে পুলিশ কেন পদক্ষেপ নিচ্ছে না। ঘটনার পরবর্তী সময়ে বোল্লা মেলার নিরাপত্তা বা শৃঙখলার দায়িত্বে থাকা দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পুলিশের ডি.এস.পি ধীমান মিত্র-র প্রতিক্রিয়া জানতে প্রতিবেদক বোল্লা মেলার পুলিশ ক্যাম্প বোল্লা রাজকিশোর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রবেশ দ্বারে উপস্থিত হলে সেখানকার প্রবেশ দ্বারের দায়িত্বে থাকা সিভিক ভলেন্টিয়ার্সরা প্রতিবেদককে ধাক্কা দেয় এবং  অশালীন গালিগালাজ করে। তাহলে কি পুলিশের  মদতেই চলছে সাংস্কৃতিক দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় মহিলাদের অর্ধনগ্ন অশ্লীল নাচের আসর, এদিনের ঘটনায় জেলাবাসীর মনে এমনই প্রশ্ন উঁকি দিতে শুরু করেছে।

Share this post

0 σχόλια:

Post a Comment

Top Ad 728x90